দেশে করোনা সংক্রমণ ৪ লাখ ছাড়িয়েছে, সুস্থ হয়েছেন ৩,১৬,৬০০ জন


Published: 2020-10-26 20:44:36 BdST, Updated: 2020-12-05 00:01:55 BdST

 

ঢাকা, ২৬ অক্টোবর, ২০২০ : দেশে করোনাভাইরাস শনাক্তের ২৩৩তম দিন পর্যন্ত এই ভাইরাসে সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা ৪ লাখ ছাড়িয়েছে, পাশাপাশি করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন সোয়া ৩ লাখের বেশি মানুষ।
আজ স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।
অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, দেশে এ পর্যন্ত মোট ২২ লাখ ৭১ হাজার ৩৪৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪ লাখ ২৫২ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। মোট পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৭ দশমিক ৬২ শতাংশ। গতকাল পর্যন্ত এই হার ছিল ১৭ দশমিক ৬৭ শতাংশ।
গত ২৪ ঘন্টায় ১৩ হাজার ৭৫৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১ হাজার ৪৩৪ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। গতকালের চেয়ে আজ ১২৮ জন বেশি শনাক্ত হয়েছে। গতকাল ১১ হাজার ১০৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছিলেন ১ হাজার ৩০৮ জন। গত ২৪ ঘন্টায় নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ১০ দশমিক ৪৪ শতাংশ। আগের দিন এই হার ছিল ১১ দশমিক ৭৮ শতাংশ। গতকালের চেয়ে আজ শনাক্তের হার ১ দশমিক ৩৪ শতাংশ কম।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১৫ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। গতকালের চেয়ে আজ ৮ জন কম মৃত্যুবরণ করেছেন। গতকাল ২৩ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এখন পর্যন্ত দেশে এ ভাইরাসে মৃত্যুবরণ করেছেন ৫ হাজার ৮১৮ জন। করোনা শনাক্তের বিবেচনায় আজ মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৪৫ শতাংশ। গতকাল এই হার ছিল ১ দশমিক ৪৬ শতাংশ। গতকালের চেয়ে আজ মৃত্যুর হার শূন্য দশমিক শূন্য ১ শতাংশ কম।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় হাসপাতাল এবং বাসায় মিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৪৯৩ জন। দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ১৬ হাজার ৬০০ জন।
আজ শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৭৯ দশমিক ১০ শতাংশ। আগের দিন এই হার ছিল ৭৯ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ। আগের দিনের চেয়ে আজ সুস্থতার হার শূন্য দশমিক শূন্য ১ শতাংশ বেশি।
বিজ্ঞপ্তিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, ‘করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘন্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১৩ হাজার ৬৬৬ জনের। আগের দিন সংগ্রহ করা হয়েছিল ১১ হাজার ৭৫৭ জনের। গতকালের চেয়ে ১ হাজার ৯০৯টি নমুনা বেশি সংগ্রহ করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় দেশের ১১১টি পরীক্ষাগারে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৩ হাজার ৭৫৮ জনের। আগের দিন নমুনা পরীক্ষা হয়েছিল ১১ হাজার ১০৩ জনের। গত ২৪ ঘন্টায় আগের দিনের চেয়ে ২ হাজার ৬৫৫টি বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার ভিত্তিতে প্রতি ১০ লাখে এ পর্যন্ত শনাক্ত ২৩৫০ দশমিক ১৮ জন। সুস্থ হয়েছেন প্রতি ১০ লাখে এ পর্যন্ত ১৮৫৯ জন এবং প্রতি ১০ লাখে মারা গেছেন এ পর্যন্ত ৩৪ দশমিক ১৬ জন।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, ২৪ ঘণ্টায মৃত্যুবরণকারী ১৫ জনের মধ্যে পুরুষ ৬ জন, আর নারী ৬ জন। এ পর্যন্ত পুরুষ মৃত্যুবরণ করেছেন ৪ হাজার ৪৮০ জন, আর নারী মৃত্যুবরণ করেছেন ১ হাজার ৩৩৮ জন। শতকরা হিসাবে পুরুষ ৭৭ শতাংশ, নারী ২৩ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় ১৪ জন হাসপাতালে এবং ১ জন বাড়িতে মৃত্যুবরণ করেছেন ।
স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ২১ থেকে ৩০ বছরের ১ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের বছরের ৩ জন এবং ষাটোর্ধ্ব রয়েছেন ১১ জন। এখন পর্যন্ত মৃত্যুবরণকারীদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, শূন্য থেকে ১০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ২৯ জন; যা শূন্য দশমিক ৫০ শতংশ। ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ৪৫ জন; যা শূন্য দশমিক ৭৭ শতাংশ। ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ১৩১ জন; যা ২ দশমিক ২৫ শতাংশ। ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ৩২১ জন; যা ৫ দশমিক ৫২ শতাংশ; ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ৭২৩ জন; যা ১২ দশমিক ৪৩ শতাংশ। ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ১ হাজার ৫৪৪ জন; যা ২৬ দশমিক ৫৪ শতাংশ এবং ৬০ বছরের বেশি বয়সের রয়েছেন ৩ হাজার ২৫ জন; যা ৫১ দশমিক ৯৯ শতাংশ।
মৃত্যুবরণকারীদের বিভাগভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা যায়, ২৪ ঘণ্টায় ঢাকা বিভাগে ১০ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৩ জন এবং বরিশাল ও সিলেট বিভাগে ১ জন করে মৃত্যুবরণ করেছেন। এ পর্যন্ত মৃত্যুবরণকারীদের বিশ্লেষণে ঢাকা বিভাগে মারা গেছেন ৩ হাজার ৫ জন; যা ৫১ দশমিক ৬৫ শতাংশ। চট্টগ্রাম বিভাগে ১ হাজার ১৫৭ জন; যা ১৯ দশমিক ৮৯ শতাংশ। রাজশাহী বিভাগে ৩৭০ জন; যা ৬ দশমিক ৩৬ শতাংশ। খুলনা বিভাগে ৪৬৪ জন; যা ৭ দশমিক ৯৮ শতাংশ। বরিশাল বিভাগে ১৯৮ জন; যা ৩ দশমিক ৪০ শতাংশ। সিলেট বিভাগে ২৪২ জন; যা ৪ দশমিক ১৬ শতাংশ। রংপুর বিভাগে ২৬১ জন; যা ৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ১২১ জন; যা ২ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ।
ঢাকা মহানগরীতে কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে সাধারণ শয্যা সংখ্যা ৩ হাজার ৫১৯টি, সাধারণ শয্যায় ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১ হাজার ৭৩৫ জন ও শয্যা খালি আছে ১ হাজার ৭৮৪টি। আইসিইউ শয্যা সংখ্যা ৩১৪টি, আইসিইউ শয্যায় ভর্তি রোগী আছে ১৬৮ জন ও শয্যা খালি আছে ১৪৬টি। চট্টগ্রাম মহানগরীতে সাধারণ শয্যা সংখ্যা ৮২৫টি, ভর্তিকৃত রোগী ১১৪ জন ও শয্যা খালি আছে ৭১১টি। আইসিইউ শয্যা সংখ্যা ৩৯টি, আইসিইউ শয্যায় ভর্তি আছে ১৫ জন ও শয্যা খালি আছে ২৪টি। সারাদেশে অন্যান্য হাসপাতালে সাধারণ শয্যা সংখ্যা ৭ হাজার ৩৮৬টি, সাধারণ শয্যায় ভর্তিকৃত রোগী ৫০৯ জন ও শয্যা খালি আছে ৬ হাজার ৮৭৭টি এবং আইসিইউ শয্যা রয়েছে ২১১টি ও আইসিইউ শয্যায় ভর্তিকৃত রোগীর সংখ্যা ৭৭ জন ও শয্যা খালি আছে ১৩৪টি । সারাদেশে হাসপাতালে সাধারণ শয্যা সংখ্যা ১১ হাজার ৭৩০টি, রোগী ভর্তি আছে ২ হাজার ৩৫৮ জন এবং শয্যা খালি আছে ৯ হাজার ৩৭২টি। সারাদেশে আইসিইউ শয্যা সংখ্যা ৫৬৪টি, রোগী ভর্তি আছে ২৬০ জন এবং খালি আছে ৩০৪টি। সারাদেশে অক্সিজেন সিলিন্ডারের সংখ্যা ১৩ হাজার ৯৫টি। সারাদেশে হাই ফ্লো নেজাল ক্যানেলা সংখ্যা ৫৬৯টি এবং অক্সিজেন কনসেনট্রেটর ৩৫৮টি।
০১৩১৩-৭৯১১৩০, ০১৩১৩-৭৯১১৩৮, ০১৩১৩৭৯১১৩৯ এবং ০১৩১৩৭৯১১৪০ এই নম্বরগুলো থেকে হাসপাতালের সকল তথ্য পাওয়া যাবে। কোন হাসপাতালে কতটি শয্যা খালি আছে। কত রোগী ভর্তি ও কতজন ছাড় পেয়েছেন এবং আইসিইউ শয্যা খালি আছে কি না এই ফোন নম্বরগুলোতে ফোন করে জানা যাবে। এছাড়া www.dghs.gov.bd এর CORONA কর্নারে ‘করোনা বিষয়ক অভিযোগ প্রেরণ’ লিঙ্ক অথবা http:/app.dghs.gov.bd/covid19-complain লিঙ্ক ব্যবহার করে করোনা বিষয়ক যেকোন অভিযোগ পাঠানো যাবে।
গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হওয়া ১ হাজার ৪৯৩ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে রয়েছেন ৯৩৭ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১৩১ জন, রংপুর বিভাগে ৪১ জন, খুলনা বিভাগে ১৩৮ জন, বরিশাল বিভাগে ৩৩ জন, রাজশাহী বিভাগে ৩৬ জন, সিলেট বিভাগে ১২৮ জন এবং ময়মনসিংহে ৪৯ জন সুস্থ হয়েছেন।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে যুক্ত হয়েছেন ১০৮ জন, আর ছাড় পেয়েছেন ১৬৭ জন। এখন পর্যন্ত আইসোলেশনে যুক্ত হয়েছেন ৮৫ হাজার ৩২৫ জন, আর ছাড় পেয়েছেন ৭৩ হাজার ২৮০ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১২ হাজার ৪৫ জন।
গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টাইনে যুক্ত হয়েছেন ৬৪২ জন, আর কোয়ারেন্টাইনে থেকে ছাড় পেয়েছেন ৭৬৩ জন। এখন পর্যন্ত কোয়ারেন্টাইনে যুক্ত হয়েছেন ৫ লাখ ৫০ হাজার ৯৮৩ জন, আর এখন পর্যন্ত ছাড় পেয়েছেন ৫ লাখ ১১ হাজার ৩৭৩ জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৩৯ হাজার ৬১০ জন।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, গত ২৪ ঘন্টায় স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ হটলাইন নম্বরে ফোনকল গ্রহণ করা হয়েছে ৪ হাজার ৬৭৪টি এবং আইইডিসিআর’র হটলাইন ১০৬৫৫, এই নম্বরে ফোন এসেছে গত ২৪ ঘন্টায় ১৫২টি। সব মিলিয়ে ২৪ ঘন্টায় ফোনকল গ্রহণ করা হয়েছে ৪ হাজার ৮২৬টি। এ পর্যন্ত হটলাইনে ফোনকল এসেছে ২ কোটি ২০ লাখ ৬৫ হাজার ৮২৪টি।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, দেশের বিমানবন্দর, নৌ, সমুদ্রবন্দর ও স্থলবন্দর দিয়ে গত ২৪ ঘন্টায় ২ হাজার ৬৬৭ জনসহ সর্বমোট বাংলাদেশে আগত ১০ লাখ ৯০ হাজার ৮৭৬ জনকে স্কিনিং করা হয়েছে।
দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার পরিস্থিতি তুলে ধরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত রিপোর্ট অনুযায়ী দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় করোনায় এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৮৮ লাখ ৭০ হাজার ৩৬৬ জন এবং এ পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করেছেন ১ লাখ ৩৯ হাজার ৫৩৭ জন।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত রিপোর্ট অনুযায়ী সারাবিশ্বে এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪ কোটি ২৫ লাখ ১২ হাজার ১৮৬ জন এবং এ পর্যন্ত ১১ লাখ ৪৭ হাজার ৩০১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

সম্পাদক: মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান পলাশ

যোগাযোগ: গুলিস্তান শপিং কমপ্লেক্স, রুম নং-১০০, ঢাকা। মোবাইল: ০১৭৪০-৫৯৯৯৮৮. E-mail: odhikarpatra@gmail.com

সম্পাদক: মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান পলাশ

যোগাযোগ: গুলিস্তান শপিং কমপ্লেক্স, রুম নং-১০০, ঢাকা। মোবাইল: ০১৭৪০-৫৯৯৯৮৮. E-mail: odhikarpatra@gmail.com


Developed by: EASTERN IT